সুপার কাপে আই লিগের কাছে ৫-৩ -এ হার আই এস এল-এর


বেঙ্গল ফুটবল নিউজ ডেস্ক৬ এপ্রিল,২০১৮

           শেষ-মেশ চলতি সুপার কাপে আই লিগের কাছে হার হলো জাকজমক পূর্ণ আই এস এল-এর। এবছর সুপার কাপের মূলপর্বে আই লিগের ৮ টি দল এবং আই এস এল-এর ৮ টি দল অংশগ্রহণ করে। যার মধ্যে আজ নেরোকার জয়ের দরুন আই লিগের ৮ টি দলের মধ্যে ৫ টি দলই জায়গা করে নেয় সুপার কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে। সেই জায়গায় ৩০ কোটির আই এস এল -এর মাত্র ৩ টি দলই পৌঁছতে পেরেছে সুপার কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে। তাতে নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে যে বাজেট নয়, খেলার মানই নির্ধারন করে সফলতা।


           প্রসঙ্গত, আই এস এল দলগুলো বরাবরই বড়ো রকম বাজেটের দল হিসেবে গড়ে উঠেছে। নামি বিদেশি প্লেয়ার-দের দলে চুক্তিবদ্ধ করা, সম্প্রচারের জাঁকজমক সবকিছুতেই আই লিগের দলগুলোকে অনেকটাই পেছনে ফেলে দিয়েছে আই এস এল -এর দলগুলো। এমনকি এই জাঁকজমক পূর্ণ দুনিয়া থেকে সরে নিরপেক্ষতা বজায় রাখতে পারেনি মিডিয়া এবং ফেডারেশনও।






            যেখানে কম বাজেটের আই লিগ "স্টার নেটোয়ার্ক" সম্প্রচার করেছে ৭ টি ক্যামেরা দ্বারা, সেখানেই আই এস এল-এর ম্যাচগুলোর জন্য বরাদ্দ ছিল তাদের ১৬ টি ক্যামেরা। ফেডারেশনও কম বাজেটের আই লিগকে বারবারই কোনঠাসা করে এসেছে। সুপার কাপে যেখানে আই এস এল দলগুলোর জন্য বরাদ্দ হয়েছে পাঁচতারা হোটেল,সেখানেই আই লিগের দলগুলো রয়েছে তিনতারা হোটেলে। একই টুর্নামেন্টে আই এস এল এবং আই লিগের দলগুলোর সঙ্গে দুরকম আচরণ কেনো তার উত্তর মেলেনি ফেডারেশন কর্তাদের কাছ থেকে।



          তবে ফেডারেশন কর্তাদের নিকট কোনো উত্তর না থাকলেও এহেন অবহেলার উত্তর বেশ ভালো ভাবেই দিয়েছে ঐতিহ্যবাহী আই লিগের দলগুলো। সুপার কাপে রীতিমত আই এস এল -এর বিগ বাজেটের দলগুলোকে ধরাশায়ী করে কোয়ার্টার ফাইনালে স্পট লাইটে উঠে এসেছে আই লিগের কম বাজেটের দলগুলো। এবছর সুপার কাপে আই লিগের ৮ টি দলের মধ্যে আই এস এল দলগুলোকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে এসেছে উত্তর-পূর্বের আইজল, নেরোকা, শিলং লাজং এবং সঙ্গে রয়েছে বাংলার ইস্ট-মোহন। অপরদিকে আই এস এল থেকে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলছে বেঙ্গালুরু এফ সি,  জামশেদপুর এফ সি এবং এফ সি গোয়া। ৫-৩ এর এই ব্যবধান নিশ্চিত ভাবেই ইঙ্গিত দিচ্ছে আই লিগের সফলতা এবং আই এস এল-এর ব্যর্থতার। চলতি সুপার কাপের আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হলো এবছরের আই এস এল এবং আই লিগ বিজয়ী দল দুটির শুরুতেই সুপার কাপ থেকে ছিটকে যাওয়া। কাজেই বলাই যায় শুধুমাত্র জাঁকজমকতাই নয় বরং খেলার মান-ই এনে দেয় আসল সফলতা। এবার ফেডারেশনেরও উচিৎ নিরপেক্ষতা অবলম্বন করে আই লিগের দলগুলোকেও আই এস এল-এর দলগুলোর ন্যায় সমান সুযোগ সুবিধা দেওয়া।

No comments