অস্ত্রপ্রচার সফল অনির্বাণের। তার যাবতীয় চিকিৎসার ভার নিল লাল হলুদ শিবির। ধন্যবাদ নীতু দা।


বেঙ্গল ফুটবল নিউজ ডেস্ক২৫ জুলাই, ২০১৮

          আই এফ এ শিল্ডের ফাইনালে ম্যাচ দেখে বাড়ি ফেরার সময় কিছু দুষ্কৃতিদের ছোঁড়া ইটে মাথায় গুরুতর চোট পান ইস্টবেঙ্গল সমর্থক অনির্বাণ কংসবণিক। ইটের আঘাতে মাথা ফেটে যাওয়ার দরুন পাঁচটি সেলাই নিয়ে সেদিন বাড়ি ফিরতে হয় অনির্বাণকে। আপাত ভাবে সেসময় অনির্বাণকে সুস্থ বলে মনে হলেও সোমবার থেকে তার অবস্থার অবনতি হয়। ফলস্বরূপ তড়িঘড়ি অনির্বাণকে ভর্তি করানো হয় তপসিয়ার কাছাকাছি একটি বেসরকারি হাসপাতলে। সেখানে ডাক্তার জানান যে অনির্বাণের মাথার হাড় ভেঙ্গে গিয়েছে এবং রক্তও জমে গিয়েছে সেখানে। 




        এরপর থেকেই দুশ্চিন্তায় পরে যান অনির্বাণের পিতা দ্বিজেন বাবু। আর্থিক দিক থেকে অনির্বাণের পরিবার তেমন স্বচ্ছল না হওয়ার দরুন হাসপাতালের চিকিৎসার খরচ নিয়ে চিন্তায় ভেঙ্গে পরেন তিনি। এরপরই অনির্বাণের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় লাল হলুদ সমর্থকেরা। সোশ্যাল মিডিয়া মারফত জায়গায় জায়গায় ছড়িয়ে দেওয়া হয় দ্বিজেন বাবুর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বর। ধীরে ধীরে সেখানে কিছু কিছু করে অর্থও সংগ্রহ হতে থাকে। এরপরই শোনা যায় যে শীঘ্রই হাসপাতালে গিয়ে অনির্বাণের পরিবারের সঙ্গে দেখা করবেন লাল হলুদ কর্মকর্তারা।


         সেইমতো আজ বিকেলেই অনির্বাণের হাসপাতালে পৌঁছে যান লাল হলুদ শীর্ষকর্তা দেবব্রত সরকার। অনির্বাণের পিতা দ্বিজেন বাবুর সঙ্গে কথা বলে ক্লাবের পক্ষ থেকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তিনি। নীতু দা জানান যে অনির্বাণের চিকিৎসার যাবতীয় ব্যয় ভার বহন করবে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব, কাজেই যেন আর অন্য কোনো রকম ভাবে অনির্বাণের জন্য অর্থ সংগ্রহ না করা হয়। এই ঘটনাটি ভারতীয় ফুটবল ইতিহাসে একটি দৃষ্টান্ত হয়ে রইল।


         এরপরই আজ বিকেলে অনির্বাণকে নিয়ে যাওয়া হয় অপারেশন থিয়েটারে। এই মুহূর্তে জানা গিয়েছে যে অস্ত্রপাচার সফল হয়েছে অনির্বাণের। এখন তাকে হাসপাতালের বেডে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা বেঙ্গল ফুটবলের তরফ থেকে দ্রুত অনির্বাণের সুস্থতা কামনা করি। যেন কলকাতা লিগের আগেই সুস্থ হয়ে ফের অনির্বাণ তার প্রিয় লাল হলুদ বাহিনীর হয়ে সমর্থনে মেতে উঠতে পারে।

No comments