দ্বন্দ্ব মিটে যেতে পারে কোয়েস এবং ইস্টবেঙ্গলের। জানতে পড়ুন।


বেঙ্গল ফুটবল নিউজ ডেস্ক, ২৫ মার্চ,২০১৯


সুপার কাপ নিয়ে যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিলেন তাতেই সম্পর্ক অবনতি হয়েছিল কোয়েস এবং ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের। লাল হলুদ ক্লাব কর্তারা সহমত পোষণ করছিলেননা কোয়েস কর্তাদের সঙ্গে যার ফলেই শুরু হয় বিতর্ক। ক্রমে শোনা যায় যে সম্পর্ক নাকী ছিন্ন হতে বসেছে কোয়েস এবং ইস্টবেঙ্গলের। আমরাই প্রথম জানিয়েছিলাম যে কোয়েস কর্ণধার অজিত আইজ্যাক কোয়েস এবং ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সম্পর্ক ছিন্ন করতে আগ্রহী নন। বরং তিনি চেয়েছিলেন সমস্যার সমাধান করে পুনরায় ক্লাবের সঙ্গে সুসম্পর্কের স্থান গড়ে তুলতে। এখন শোনা যাচ্ছে যে ২৮ তারিখের মিটিং-এ সেই পথেই হাঁটতে চলেছেন কোয়েস কর্তা৷




চলতি মাসের ২৮ তারিখ কোয়েসের পক্ষ থেকে বেঙ্গালুরুতে মিটিং-এর জন্য ডেকে পাঠানো হয়েছে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব কর্তাদের৷ শোনা যাচ্ছে যে এই মিটিং-এই সমস্যার সমাধান করে ক্লাবের সঙ্গে ফের সুসম্পর্ক গড় তুলতে আগ্রহী কোয়েস৷ কোয়েস একটি বড়ো সংস্থা হওয়া সত্ত্বেও ইস্টবেঙ্গল সঙ্গে জোটের পূর্বে কোয়েসের কথা বিশেষ কেউ জানতেন না৷ ইস্টবেঙ্গলের জনপ্রিয়তার জন্য ধীরে ধীরে পরিচিতি বেড়েছে কোয়েসের৷ তাই লাল হলুদের সঙ্গে কোনোভাবেই সম্পর্ক ছিন্ন-র কথা ভাবেননি কোয়েস কর্তারা। তাই ক্লাব কর্তাদের সঙ্গে ফের সুসম্পর্ক তৈরী করে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের চেষ্টাই ২৮ তারিখের মিটিং-এর উদ্দেশ্য বলে বলা যায়৷


বলা বাহুল্য যে কিছুদিন আগে সঞ্জীব গোয়েঙ্কা এবং লাল হলুদ কর্তা দেবব্রত সরকার-এর মিটিং নিয়ে নানান মন্তব্য শোনা গেলেও তা যে সঠিক নয় তা কোয়েস কর্তা অজিত আইজ্যাকের বক্তব্যেই পরিষ্কার৷ অপরদিকে সুপার কাপ নিয়ে কিছুটা বরফ গললেও, জটিলতা এখনও কাটেনি। তাই ইস্টবেঙ্গলের পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে তা নিয়েও আলোচনা হতে চলেছে ২৮ তারিখের মিটিং-এ। সবমিলিয়ে এবার বলা যায় যে কোয়েস - ইস্টবেঙ্গল সম্পর্ক নিয়ে লাল হলুদ সমর্থকদের আশঙ্কার আর বিশেষ কোনো কারণ রইল না৷ কোয়েস থাকছে লাল হলুদেই৷

No comments