চাঁদের হাট শতবর্ষের অনুষ্ঠানে। লাল হলুদ সমর্থকদের দেখে আপ্লুত কপিল দেব৷


বেঙ্গল ফুটবল নিউজ ডেস্ক, ১ আগস্ট, ২০১৯

পায়ে পায়ে শতবর্ষে পৌঁছে গেলো গর্বের ইস্টবেঙ্গল। শুরু হয়ে গেলো শতবর্ষের উদযাপন। আজ নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে রীতিমতো চাঁদের হাট বসেছিল ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষের অনুষ্ঠানে। হাজির ছিলেন ফুটবলের বর্তমান এবং প্রাক্তন ফুটবলারদের ছাড়াও বিশ্বকাপ জয়ী ক্যাপ্টেন কপিল দেব।


এদিন বিকেল পাঁচটায় নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে লাল হলুদের শতবর্ষের অনুষ্ঠানের সূচনা করেন কপিল দেব, বাইচুং ভুটিয়া, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, সুভাষ ভৌমিক-রা৷ এরপরই এই মঞ্চে ইস্টবেঙ্গলের তরফে ভারত গৌরব সম্মানে সম্মানিত হলেন কপিল দেব। বিশ্বকাপ জয়ী ক্যাপ্টেন জানান যে, লাল হলুদ সমর্থকদের আবেগ দেখে তিনি আপ্লুত৷ তিনি আরও জানান যে আজ ১০০ বছর ধরে ইস্টবেঙ্গলের পথ চলার সফলতার একটি অন্যতম দিক হলো ইস্টবেঙ্গলের সমর্থকেরা।




শুধু কপিল দেব ই নন, এদিন লাল হলুদের শতবর্ষের বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন সৌরভ গাঙ্গুলি, মুখ্যন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। এবং প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। এছাড়াও ভারতের জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী। বাদ যাননি এআইএফএফ সচিব কুশল দাস এবং আইএফএ চেয়ারম্যান সুব্রত দত্ত।

শতবর্ষের অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে আজ আবেগে মাতলেন বাইচুং ভুটিয়া, সুভাষ ভৌমিক, মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য, শ্যাম থাপা, ভাস্কর গঙ্গোপাধ্যায়, মহম্মদ হাবিব সহ প্রমুখরা৷ এরপর এই মঞ্চেই ইস্টবেঙ্গল জীবনকৃতি সম্মান পেলেন লাল হলুদের দুই ঘরের ছেলে ভাস্কর গঙ্গোপাধ্যায় এবং মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সর্বকালের সেরা কোচের পুরস্কার পেলেন প্রদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। সেরা রেফারির সম্মান পেলেন রত্নাঙ্কুর ঘোষ। এবং সেরা ক্রীড়া সাংবাদিকের পুরস্কার পেলেন গৌতম ভট্টাচার্য।


এছাড়াও আজ লাল হলুদের শতবর্ষের অনুষ্ঠানে অভিনন্দন জানানো হয় ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সুরেশ চন্দ্র চৌধুরীর পরিবারকে৷ অভিনন্দন জানানো হয় শৈলেশ বসুর পরিবারকেও। সবমিলিয়ে যেন আজ লাল হলুদে শতবর্ষ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে বসেছিল চাঁদের হাট৷ শেষে পন্ডিত বিক্রম ঘোষের রিদম স্কোপ দিয়ে অনুষ্ঠানটি সমাপ্ত হয়৷

No comments