চলে এলেন বাদশাহ। ভোর রাতে আবেগের মহাবিস্ফোরণ লাল হলুদ সমর্থকদের।


বেঙ্গল ফুটবল নিউজ ডেস্ক, ১১ আগস্ট, ২০১৯

ঘড়ির কাটায় ৩ টে ৪০, প্রায় ভোর হয়ে এলেও রাতের অন্ধকার তখনও কাটেনি। সেসময়ই কলকাতার মাটিতে ফের একবার পা রাখলেন আশির দশকের ফুটবল বাদশাহ মজিদ বাসকর। আর তাকে ঘিরে আবেগের মহাবিস্ফোরণ দেখলো গোটা কলকতা নগরী।


সালটা ১৯৮৮, গভীর রাতে কলকতা ছেড়েছিলেন বাদশাহ মজিদ বাসকর। এরপর কেটে গিয়েছে ৩২ টা বছর। বহু জল গড়িয়েগিয়েছে গঙ্গার বুক দিয়ে। অভিমানী বাসকর কলকতাকে মনে প্রাণে ভালোবাসলেও আর ফিরে আসেননি নিজের প্রিয় শহরে। অবশেষে ক্লাবের শতবর্ষের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পেয়ে মান ভাঙ্গে তাঁর৷ তাই দীর্ঘ ৩২ বছর ফের কলকতার বুকে পা রাখলেও আশির দশকের কিংবদন্তি।






ভোর রাতে বাসকরকে স্বাগতন জানাতে দমদম বিমানবন্দরে হাজির ছিলেন শয়ে শয়ে লাল হলুদ সমর্থকেরা৷ আশির দশকে কলকাতা ছাড়লেও বর্তমান সময়েও বাদশাহকে ঘিরে যে কতোখানি আবেগ রয়েছে তারই এদিন দেখা মিলল বিমানবন্দরে। চললো ইস্টবেঙ্গল!!! ইস্টবেঙ্গল!!! ধ্বনি। এরমধ্যেই মজিদ বাসকর দীর্ঘ বিমানযাত্রার পর বিমানবন্দরের বাইরে এলে ঘটলো আবেগের বিস্ফোরণ। চারিদিক শুধু বাদশাহ!! বাদশাহ!! ধ্বনিতে ফেটে পরে। সেই বিস্ফোরণের তীব্রতা এতোটাই হয়ে যায় যে বিমানবন্দর থেকে বেড়োতে না পেরে ফের বিমানবন্দরের ভেতরেই ঢুলে যান মজিদ। শেষে বিমানবন্দর কিছুটা ফাঁকা হলে তাকে বের করে আনা হয়৷


আগামী ১২ আগস্ট, ফের ১২ নম্বর জার্সি পরেই ময়দানে আরও একবার নামতে চলেছেন আশির দশকের কিংবদন্তি বাদশাহ মজিদ বাসকর। এরপর বিকেলে তিনি বসবেন এক সাংবাদিক বৈঠকে, সেখানেই নিজের আবেগ আরও একবার উজাড় করে জনসমক্ষে বক্তব্য রাখবেন বাদশাহ। ১৩ আগস্ট কলকাতার জন্ম শতবর্ষের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ ও করতে দেখা যাবে মজিদ বাসকর-কে। বলা বাহুল্য, মজিদ বাসকর এমনই একজন কিংবদন্তি, যিনি ১৯৮৮ থেকে ২০১৯ যে কোনো সময়ই লাল হলুদ সমর্থকদের আবেগে ভাসিয়ে দিতে পারেন।

No comments